বিচারক নিজেই শিশু নির্যাতন কারী! শিশু নির্যাতনের অভিযোগে সাতক্ষীরার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম প্রত্যাহার

47945_170শিশু নির্যাতনের অভিযোগে ওঠায় সাতক্ষীরার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম নূরুল ইসলামকে বিচারিক আদালত থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। সাতক্ষীরার মুখ্য বিচারিক হাকিম নিতাই চন্দ্র সাহা জানান, যেহেতু শিশু গৃহকর্মী নির্যাতনের একটি ঘটনার অভিযোগ পাওয়া গেছে, এ কারণে নূরুল ইসলামকে প্রাথমিকভাবে বিচারিক আদালত থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। এ জায়গায় জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আকরাম হোসেনকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন, ‘নূরুল ইসলামের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের প্রস্তুতি চলছে।’ গতকাল বুধবার সাতক্ষীরার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম নুরুল ইসলামের বাসা থেকে বীথি (১০) নামের এক শিশুকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। বীথি নুরুল ইসলামের বাসায় কাজ করত। পুলিশ বীথির গায়ে পোড়া, ছ্যাঁকা ও আঘাতের ৩০টির বেশি চিহ্ন পেয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, প্রতিদিনই মেয়েটির ওপর নির্যাতন করা হয়। বীথিকে নিজেদের হেফাজতে নিয়েছে সদর থানা পুলিশ। বর্তমানে বীথি সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা ড. ফরহাদ জামিল জানান, দৈহিক নির্যাতনের শিকার বীথি নামের কাজের মেয়েটির চিকিৎসার জন্য তিন সদস্যের একটি মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। তাঁরা হলেন ডা. আসাদুজ্জামান, ডা. রুহুল কুদ্দুস ও তিনি নিজে। তিনি জানান, মেয়েটিকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়েছে। তার দেহের কিছু ক্ষত মাত্র কয়েক দিন আগের বলে জানান তিনি। বুধবার ম্যাজিস্ট্রেটের বাসা থেকে নির্যাতিত শিশুটিকে উদ্ধারের পর পুলিশ থানায় একটি জিডি করে (নম্বর ৯৪১)। এর পর ২৪ ঘণ্টার বেশি সময় পার হয়ে গেলেও কোনো মামলা হয়নি। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমদাদ শেখ জানান, মেয়েটির বাবা থানায় মামলা করতে এসেছেন। তিনি বলেন, মামলা দায়েরের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এ ছাড়া বুধবার রাতে জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম শিমুল কুমার বিশ্বাস সাতক্ষীরা হাসপাতালে মেয়েটির জবানবন্দি গ্রহণ করেন। মেয়েটি এ সময় তার ওপর নির্যাতনের বিষয়টি তুলে ধরে।

১টি মন্তব্য প্রকাশিত হয়েছে

মন্তব্য করুনঃ