পরমাণুকেন্দ্রের প্রহরীকে হত্যা করে প্রবেশ কার্ড চুরি

445ব্রাসেলস হামলায় জড়িত চক্রকে পাকড়াও করতে বেলজিয়ামের পুলিশ এখনো সাঁড়াশি অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে। তবে এই অভিযানের মধ্যেই দেশটির একটি পরমাণুকেন্দ্রের একজন নিরাপত্তাকর্মীকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। তাঁর সঙ্গে থাকা ভেতরে ঢোকার স্বয়ংক্রিয় অনুমতিপত্রও (অ্যাকসেস ব্যাজ) নিয়ে যাওয়া হয়েছে।
জঙ্গিদের হামলার প্রধান লক্ষ্য ছিল বেলজিয়ামের পরমাণুকেন্দ্র—একটি ফরাসি পত্রিকা গত বৃহস্পতিবার এমন প্রতিবেদন করার পর এ ঘটনা ঘটল।
শুক্রবার ব্রাসেলসের অদূরের শেয়ারবিক এলাকায় অভিযান চালানোর সময় এক সন্দেহভাজনকে পায়ে গুলি করে আহত অবস্থায় ধরেছে পুলিশ। তবে তার নাম ঠিকানা প্রকাশ করা হয়নি। অন্যদিকে ব্রাসেলস হামলার ভিডিও ফুটেজে যে তিন হামলাকারীর ছবি দেখা গিয়েছিল, তাদের তৃতীয়জনকেও শনাক্ত করা গেছে। বেলজিয়ামের সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, তৃতীয় ওই ব্যক্তির নাম ফয়সল শেফু।
চলমান সাঁড়াশি অভিযানে বৃহস্পতিবার থেকে গতকাল শনিবার পর্যন্ত বেলজিয়ামে মোট নয়জনকে আটক করা হয়েছে। এ ছাড়া ব্রাসেলসের ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত সন্দেহে শুক্রবার জার্মানি থেকে দুজন এবং ফ্রান্স থেকে একজনকে আটক করা হয়।
বেলজিয়াম থেকে ফরাসি ভাষায় প্রকাশিত একটি পত্রিকা গতকাল শনিবার জানিয়েছে, দেশটির শারলেরোই এলাকায় অবস্থিত পরমাণুকেন্দ্রের একজন নিরাপত্তাকর্মীকে কে বা কারা গুলি করে হত্যা করে ফেলে গেছে। কেন্দ্রে ঢোকার জন্য ওই নিরাপত্তাকর্মী যে অ্যাকসেস ব্যাজ ব্যবহার করতেন, সেটি পাওয়া যাচ্ছে না।
একজন নারী পুলিশ কর্মকর্তার বরাত দিয়ে পত্রিকাটি বলেছে, নিরাপত্তার কথা ভেবে অ্যাকসেস ব্যাজের প্রবেশ কোড নম্বর তাৎক্ষণিকভাবে অচল করা হয়েছে। এ ঘটনার পেছনে জঙ্গিগোষ্ঠী জড়িত কি না, সে বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে পরমাণুকেন্দ্রে সন্ত্রাসীদের নজর রয়েছে বলে এর আগে যে আশঙ্কা করা হয়েছিল, এ ঘটনা সেই আশঙ্কাকে আরও জোরালো করবে বলেই ধারণা করা হচ্ছে।
এই পত্রিকাটি গত বৃহস্পতিবার এক প্রতিবেদনে বলেছিল, হামলাকারীরা প্রথমে পরমাণুকেন্দ্রকেই লক্ষ্যবস্তু করেছিল। কিন্তু পরে চক্রের বেশ কয়েকজন ধরা পড়ে যাওয়ায় তারা দ্রুত মত বদলে ফেলে এবং বিমানবন্দর ও পাতালরেল স্টেশনে হামলা চালায়।
এদিকে বেলজিয়ামের কৌঁসুলিরা গতকাল জানিয়েছেন, প্যারিস হামলার অন্যতম সন্দেহভাজন সালাহ আবদেসালাম ব্রাসেলস হামলা নিয়ে নিয়ে মুখ খুলছেন না। প্রথম দিকে আবদেসালাম জিজ্ঞাসাবাদকারীদের সহযোগিতা করলেও মঙ্গলবারের ব্রাসেলস হামলার পর তিনি তাঁর ‘চুপ থাকার অধিকার’ প্রয়োগ করছেন।
এদিকে, ফের যাতে কোনো বিপর্যয়ের মুখে পড়তে না হয়, সে জন্য ব্রাসেলস বিমানবন্দর আগামী মঙ্গলবার পর্যন্ত বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।
ওবামার হুঁশিয়ারি: মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, ব্রাসেলস হামলার দায় মুসলমানদের ওপর ঢালাওভাবে চাপিয়ে দেওয়া ঠিক হবে না। তাহলে বিষয়টিকে সন্ত্রাসীরাই ঘুঁটি হিসেবে ব্যবহার করবে।
গতকাল শনিবার সাপ্তাহিক ভাষণে ওবামা বলেন, ‘সহিংস জঙ্গিবাদে লিপ্ত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মুসলমান-আমেরিকানরা আমাদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার। তাই মুসলমান-আমেরিকানদের দোষারোপ করা এবং দেশের উন্নয়নে তাঁদের ব্যাপক অবদানকে ছোট করে দেখার যেকোনো চেষ্টা আমাদের প্রতিহত করতে হবে। এ ধরনের কাজ হবে আমাদের জাতীয় চরিত্র, মূল্যবোধ ও ইতিহাসের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। মুসলমানদের দোষারোপ করা হলে তা সন্ত্রাসীদের পক্ষেই যাবে, যারা আমাদের একে অন্যের প্রতিপক্ষ হিসেবে দাঁড় করাতে চায়।’
বেলজিয়ামের সন্ত্রাসী হামলায় দুই মার্কিন নাগরিকসহ ৩১ জন নিহত হয়।

২টি মন্তব্য প্রকাশিত হয়েছে

মন্তব্য করুনঃ